নুসরাত হত্যাকারীদের কঠোর শাস্তি দাবিতে নিউইয়র্কে সমাবেশ

রক্ষা পাচ্ছে না। প্রশাসনের, পুলিশের এবং ক্ষমতাসীন দলের সহযোগিতা না পেলে এভাবে সারা দেশে এধরনের অন্যায় করতে পারবে না বলেও বক্তারা উল্লেখ করেন।

প্রধানমন্ত্রী প্রতিটি ক্ষেত্রে যদিও সমাধানের হাত বাড়িয়ে দিতে সচেষ্ট হন কিন্তু এক ব্যক্তির পক্ষে কখনো কি সারাদেশের সব সমাধান করা সম্ভব? তাই দেশে আইনের শাসন তথা সুশাসন চালুর জোর দাবি জানান।

প্রশাসনে অন্যায়কারিদের শুধু বদলি না করে অন্যায় কাজের জন্য কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। সারা দেশের জনগণ এভাবে পুলিস বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে জিম্মি হওয়াও কোন সমাধান নয়। তাই এসবের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার হওয়ার এবং যেকোন অন্যায়, অবিচার ও ঘুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরব হওয়ার আহবান জানান বক্তারা।

সচেতন ও সক্রিয় গণআন্দোলন ছাড়া শুধু আইন পাশ করে সমাজের গভীরে প্রোথিত অন্যায়ের শিকড় উপড়ে ফেলা অসম্ভব। তাই এই সব হত্যা ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে দেশে প্রবাসে সবাইকে সোচ্চার হওয়ার আহবান জানান বক্তারা।

এই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ফোরাম সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খোরশেদুল ইসলাম। আরও বক্তব্য দেন জাসদ সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম জিকো, উদীচীর সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট শিল্পী সফি চৌধুরী হারুন, মুক্তিযোদ্ধা কাশেম আলী, নারী ম্যাগাজিনের সম্পাদক পপি চৌধুরী, কুলাউড়া সমিতির উপদেষ্টা মুকিত চৌধুরী, সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, আবৃত্তিকার গোপন সাহা, সাংবাদিক নিনি ওয়াহেদ, আইনজীবী নেতা অ্যাডভোকেট শেখ আখতারুল ইসলাম, যুবনেতা রেজাউল বারী, মহিলা পরিষদ নেত্রী লিপি সাহা, ফোরাম নেতা জাকির হোসেন বাচ্চু, মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুলেখা পাল, কবি এবিএম সালেহ উদ্দিন, ফোরাম নেতা মোহাম্মদ হারুন।

অনুসন্ধান

পুরাতন খবর

এই বিষয়ের আরো খবর

© All rights reserved © 2017 ThemesBazar.Com

Desing & Developed BY লিমন কবির